স্টেইটস্ অভ আর্টঃ ওয়াশিংটন ডিসি

mashiur
By mashiur December 26, 2016 22:15

স্টেইটস্ অভ আর্টঃ ওয়াশিংটন ডিসি

পৃথিবীর দুইটা দেশের না-কি বাংলা নাম আছে, যা তাদের মূল নাম থেকে সম্পূর্ণ আলাদা। একটা হলো ইন্ডিয়া, যার বাংলা হচ্ছে ভারত। অন্যটাও খুব একটা অপরিচিত কোনো দেশ নয়। তবে সে না-হয় হলো। তাই বলে যদি বলি দেশের স্ত্রীলিংগ আছে, তাহলে জিনিসটা কি কিছুটা বাড়াবাড়িই হয়ে যায় না? আসলে কিন্তু না। রূপসী বাংলার রূপসী শব্দটাই তার প্রমাণ। বাংলাকে যদি আমরা একটু বেশি আগ্রহ দেখিয়ে রূপসী বাংলাই বলি, তাহলে অ্যামেরিকানরাও কি তাদের দেশকে সেরকম কিছু একটা বলে না? হ্যাঁ বলে, এরা বলে কলাম্বিয়া। অ্যামেরিকার অন্য আরেকটা কাব্যিক আদুরে নাম হলো কলাম্বিয়া। ১৪৯২ সালে স্পেনের বিখ্যাত কিংবা কুখ্যাত রাণী, ইসাবেলা, সাম্রাজ্য বিস্তারের লক্ষ্যে নিজের গয়না বিক্রি করে যে নাবিককে সমুদ্র পরিভ্রমণে পাঠিয়েছেন, সেই ক্রিস্টোফার কলাম্বাসের নামেই নামকরণ হয়েছে কলাম্বিয়া অর্থাৎ ল্যান্ড অব কলাম্বাস বা কলাম্বাসের ভূমি।

নাটোরের মুরগীর ফার্ম থেকে শুরু করে মুদির দোকান, ইট ভাটা থেকে শুরু করে মিষ্টির দোকান সবকিছুর নামই যেমন বনলতা, ইউএসএ’তেও ব্যক্তিপ্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে স্কুল-কলেজ, বিড়ালের নাম থেকে শুরু করে কুকুরের নাম, সবকিছুই আছে এই কলাম্বিয়া নাম দিয়ে। তবে সবকিছুকে পেছলে ফেলে এগিয়ে গেছে, ইউএসএ’র রাজধানীর নাম- ওয়াশিংটন, ডিসি। ডিস্ট্রিক্ট অব কলাম্বিয়া এর সংক্ষিপ্ত রূপ ডিসি। ইউএস কংগ্রেসের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১৭৯০ সালে সংবিধানসন্মত উপায়ে ওয়াশিংটন ডিসিকে গোটা অ্যামেরিকার রাজধানী ঘোষণা করা হয়। ইউএসএ’র পঞ্চাশটি প্রদেশের মধ্যে ম্যারিল্যান্ড এবং ভার্জিনিয়া প্রদেশ থেকে অনুদান হিসেবে দেয়া ভূমিতে পোটোম্যাক নদীর তীরে মাত্র ১০০ বর্গমাইল এলাকাজুড়ে গড়ে তোলার পরিকল্পনা করা হয় স্বাধীন এক ওয়াশিংটন,ডিসির। বর্তামানে এটি কোনো প্রদেশের অংশ না হয়েও, সকল প্রদেশের তথা ইউএসএ’র রাজধানী।

মহামান্য রাজধানীতে নেমেই, বিমানবন্দর থেকে বাসে উঠে চলে এলাম মেট্রো (সিটি ট্রেন) স্টেশানে। চলন্ত সিঁড়ি দিয়ে নীচে তাকাতেই দেখি মাথা ঘুরে যাবার দশা। ইউএসএর অন্য কোনো শহরের মেট্রো স্টেশানে এত লম্বা সিঁড়ি দেখিনি। মনে হয়ে সিঁড়ি বেয়ে নেমে চলে যাচ্ছি কোনো এক আদিম গুহায়, পাতালপুরীতে। সমস্ত গুহা কাঁপিয়ে ট্রেন এসে থামে। এখানকার মেট্রোসিস্টেম ক্যালিফোর্নিয়ার মত; নিউইয়র্ক, শিকাগো থেকে একদমই আলাদা। মেট্রোতে চড়ার পর প্রথমেই যে স্টেশানে নামিয়ে দেয়া হলো তার নাম শুনেই গা ঠান্ডা হয়ে গেলো। দুর্বল চিত্তে স্টেশানের চার তলা সমান চলন্ত সিঁড়ি বেয়ে উপরে উঠে আসলাম। একি! কয়েক কদম পা বাড়াতেই সেই নাম-ডাকওয়ালা প্রতিষ্ঠান- পেন্টাগন। ঢাকা শহরে নতুন আসলে যেমনটা হয়, তেমন করে উঁকিজুঁকি মেরে দেখার চেষ্টা করছি, আসলেই পেন্টাগনতো? নাটোরের মুরগীফার্মের বনলতার মত এখানেও আবার সব কিছুর নাম পেন্টাগন নাকি! অবশেষে আমার দামী ক্যামেরাওয়ালা বউ যখন দেখলো ছবি তোলা নিষেধ, তখন বুঝা গেলো এটা আসল পেন্টাগনই। এই প্রথম ছবি না তুলতে পেরেও সে খুশি, কারণ ছবি না তুলতে পারার কারণেই বুঝা গেলো এটা আসল না-কি নকল। আমার ধারণা ছিলো পেন্টাগনের কয়েক কিলোমিটার দূর থেকে সিকিউরিটি চেক করে বাপ-দাদার নাম জিজ্ঞেস করা শুরু করবে; কিন্তু এখানে দেখি কয়েক কদমের দূরত্বে চলে আসলেও কোনো সাড়া শব্দ নেই।

ইউএসএ’র অন্যসব বড় বড় শহরে সব বিল্ডিংগুলো বেড়েছে উপরের দিকে। কিন্তু এই ওয়াশিংটন ডিসিতে সেটা বেড়েছে পাশের দিকে, প্রস্থের দিকে। কয়েকটা ব্লক নিয়ে একেকটা বিল্ডিং বা একেকটা অফিস। অত্যন্ত রুচিশীল আর আধুনিক নির্মাণশৈলীর দৃষ্টিনন্দন এই স্থাপনাগুলোই বলে দেয় এই শহর বিশেষ একটা কিছু। রাজকীয় ভঙ্গিমায় দাঁড়িয়ে থাকা একেকটা স্থাপনা যেন সদর্পে, ঔদ্ধত্য দেখিয়ে ঘোষণা করছে তাদের উচ্চমর্যাদা। ঘোষণা করছে তারা রাজাধিরাজ। রাজতন্ত্র থাকলে ইউএসএর রাজা থাকতো এই শহরে, রাজধানীতে। পেন্টাগনের কথাই ধরা যাক, ফ্লোর এর আয়তন বিবেচনা করলে(৫টি ফ্লোর) এটি পৃথিবীর সবচেয়ে বড় অফিস, প্রায় আশিটি ফুটবল মাঠের সমান এবং পঁচিশ হাজারের বেশি মানুষ এখানে কাজ করে। প্রতিদিন এখান থেকে করা হয়ে থাকে দুই লক্ষ ফোন কল, প্রতিমাসে চালাচালি হয় ১২ লক্ষ চিঠি। শুধু সময় দেখার জন্যই আছে ৪২০০ ঘড়ি, সবগুলো ফ্লোর মিলিয়ে করিডোর এর সর্বমোট দৈর্ঘ্য ১৭ মাইলের উপরে। আসলে পেন্টাগন নিজেই একটা ছোটো শহর।

পেন্টাগন পৃথিবীর সবচেয়ে বড় অফিস। সেটার কথা না হয় বাদই দিলাম। ওয়াশিংটন ডিসির একটা মাঝারি অফিসের ব্যাপারে আসা যাক। জাস্টিস বিল্ডিং এর কথাই ধরা যাক। সাতটা ফ্লোর মিলিয়ে সর্বমোট অফিসের জায়গা এক লক্ষ বর্গমিটারের বেশি। কম করে হলেও ১৫টা ফুটবল মাঠ। অন্যদিকে, অবধারিতভাবে এই বিল্ডিংগুলোর নাম ইউএসএর প্রেসিডেন্টদের নামে। যেমন, জন এফ কেনেডি জাস্টিস বিল্ডিং। রাম-সাম-যদু-মধু কত প্রেসিডেন্ট যে এদের ছিলো, এখানে আসলে টের পাওয়া যায়। শস্যের চেয়ে টুপি বেশি, ধর্মের আগাছা বেশি, মানুষের থেকে প্রেসিডেন্ট বেশি। মাদাম তুসোর মিউজিয়ামে গিয়ে জিজ্ঞেস করলাম, অন্য মাদাম তুসো মিউজিয়ামের সাথে এখানকার মাদাম তুসো মিউজিয়ামের পার্থক্য কি? রিসেপশানে বসে থাকা ভদ্রমহিলা গর্বিতভাবে উত্তর দিলো, আমাদের এই মিউজিয়ামেই আছে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি প্রেসিডেন্ট। হায় দুনিয়া! কই একটু ঐশ্বিরিয়া রায়কে দেখতে যাবো, তা না হয়ে মোমের তৈরী আব্রাহাম লিঙ্কনকে দেখো। বাঙ্গালের দুঃখ প্রেসিডেন্ট-ভরা দেশের লোকজনকে কি করে বুঝাই!

একসময় স্বাধীনভাবে হাঁটতে হাঁটতে ফ্রিডম প্লাজার সামনে গিয়ে হাজির হই। এখানে দলে দলে শুয়ে আছে অনশন পার্টি। ওবামা ব্যাটা যে দেশকে রসাতলে নিয়ে যাচ্ছে, সেটা চোখে আঙ্গুল দিয়ে বুঝিয়ে দেয়ার জন্য এরা এখানে এসে তাঁবু টাঙ্গিয়ে আসন গেঁড়ে বসেছে। অনশনকারীর থেকে সাংবাদিক বেশি। এই চ্যানেল, সেই চ্যানেল, বিবিসি, সিএনএন, রয়টার্স, যেদিকে দুচোখ যায় শুধু বিখ্যাত কিছুর আনাগোনা। এত লোকের আস্তানা গেঁড়ে দেশ উদ্ধারের প্রচেষ্টা এদের সচেতনতাকে যেমন প্রমাণ করে, তেমনি আবার প্রমাণ করে ইউএসএ’ তে বেকার সমস্যা আর হোমলেস্‌ বেড়ে গেছে কি পরিমাণে। অবশ্য, কাজকর্ম নেই, গৃহহীণ হয়ে খোলা আকশের নীচে তাঁবু টাঙ্গিয়ে সিএনএন, বিবিসিতে ইন্টারভিউ দেয়া খুব একটা মন্দ কিছু নয়!

ওয়াশিংটন ডিসির হাইকোর্টের মত মাস্তুলওয়ালা(গম্বুজ) যে বিল্ডিংটা শহরের প্রতিনিধিত্ব করে সেই বিল্ডিং এর নাম ইউএস ক্যাপিটল । ঢাকা শহর বুঝানোর জন্য যেমন শাপলা চত্বর দেখানো হয়ে, ডিসি বুঝানোর জন্য এই ক্যাপিটল বিল্ডিংটা দেখানো হয়। ইউএস কংগ্রেসের অধিবেশন এখানেই হয়ে থাকে। ১৭৯২ সালে প্রেসিডেন্ট থমাস জেফারসন ক্যাপিটল হিলে গড়ে উঠা এই ইউএস ক্যাপিটল বিল্ডিং এর ডিজাইন করার জন্য এক প্রতিযোগিতার আয়োজন করেন এবং সেই সময়েই পাঁচশ ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেন। এই ইউএস ক্যাপিটল এর পাশেই রয়েছে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় লাইব্রেরী- লাইব্রেরী অব কংগ্রেস। এখানে রাখা আছে প্রায় আড়াই কোটি পুস্তক, যার মাধ্যে ছয় হাজারের মত আবার ১৫০০ শতকেরও আগের লেখা।

রাজধানীর বিল্ডিং এর দৈর্ঘ প্রস্থ নিয়ে এত কিছু বলা হলো, কিন্তু উচ্চতার কথা আসলেও সে হার মানবে কেন। রাজধানী বলে কথা। এবার একটা পাথরের মনুমেন্ট এর কথা বলি। এখানে যাই দেখি তাই বিশ্বের বৃহৎ, বিশ্বের সর্বপ্রথম, বিশ্বের প্রাচীন, বিশ্বের সুদীর্ঘ। অতএব, পাথরের তৈরী এই মনুমেন্ট (অবিলিস্ক) যে বিশ্বের সর্বোচ্চ হবে, সেটা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। অন্যদিকে, অলিতে-গলিতে প্রেসিডেন্টের আনাগোনা হবার কারণে এই মনুমেন্টের নামও যে প্রেসিডেন্টের নামেই হবে, সেটাই বা আর এমন কি। ওয়াশিংটন মনুমেন্ট। উচ্চতা ৫৫৫ ফুট। প্রেসিডেন্ট ওয়াশিংটন এর নামে। যাকে বলা হয়ে থাকে, সমরেও সবার আগে, শান্তিতেও সবার আগে। অবশ্য ইউএসএর কতিপয় বেজায় দুষ্টু লোক গোটা মনুমেন্টের ডিজাইনটাকে অশ্লীল হিসেবে গণ্য করে।

এবার আসি লিঙ্কন মেমোরিয়ালের কথায়। আব্রাহাম লিঙ্কন। ইউএসএর সবচেয়ে বেশি প্রভাব বিস্তারকারী এবং সন্মানিত প্রেসিডেন্টদের মধ্যে একজন। যত সংখ্যক বাংলা সিনেমায় দোয়েল চত্বর দেখানো হয়েছে, তার চেয়ে বেশি সংখ্যক হলিউডের ম্যুভিতে এই লিঙ্কন মেমরিয়াল এবং তার সামনের লম্বা লেকটা দেখানো হয়েছে। জনপ্রিয়তার বিচারে প্রায় ‘বেদের মেয়ে জোসনা’র সমকক্ষ হয়ে যাওয়া ‘ফরেস্ট গাম্প’ ম্যুভিতে ফরেস্ট যে লেকটার মধ্যে নেমে হাঁটতে শুরু করে সেটাই লিঙ্কন মেমরিয়ালের সামনের লেক। লিঙ্কন মেমরিয়ালের সিঁড়িতে দাঁড়ালেই চোখে পড়ে মনোরম সেই লেক (এখন সংস্কার কাজ চলছে) আর খানিকটা দূরে সুউচ্চ ওয়াশিংটন মনুমেন্ট।

১৯৬৩ সালের ২৮ শে অগাস্ট দুই লক্ষ লোকের সামনে মার্টিন লুথার কিং তার জগিদ্বিখ্যাত সতের মিনিটের ‘আই হ্যাভ এ ড্রিম’ বক্তৃতাটুকু এই লিঙ্কন মেমরিয়ালের সিঁড়িতে দাঁড়িয়েই দিয়েছিলেন। ডিসি থেকে ফিরে আসার আগের দিনে গিয়েছিলাম, হোয়াইট হাউজের কাছে। হোয়াইট হাউজের পিছনের রাস্তায় দাঁড়িয়ে দেখছি। হঠাৎ করে পুলিশ এসে অনুরোধ করলো রাস্তার অন্য পাশে চলে যেতে, রাস্তার এপাশে থাকা যাবে না। কিন্তু ঘটনা কি! একজন পুলিশকে গিয়ে জানতে চাইলাম, কেন ওদিকে চলে যেতে বলছে, ওবামা কি এ-পথেই আসবে না-কি। মুচকি হাসি দিয়ে বেচারা বলে, আসলেও আসতে পারে। আমাদের আর বুঝার বাকী থাকলো না। আমার বউ তার দামী ক্যামেরা নিয়ে প্রস্তুত। আমি আমার কমদামীটা নিয়েই প্রস্তুত। প্রেসিডেন্ট সাহেব আবার আসছেন কোরিয়ান প্রেসিডেন্টকে সঙ্গে নিয়ে। কিন্তু একি দেখলাম! বাংলাদেশের একটা প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রীও এর থেকে বেশি বহর নিয়ে চলাফেরা করেন। প্রেসিডেন্টের ছোট্ট বহরে ওবামাকে দেখলাম না, শুধু দেখলাম তার বুলেটপ্রুফ গাড়ী আর গাড়ীর মধ্যে কিছু ছায়া। অন্যদিকে, প্রেসিডেন্ট দেখুক আর না-দেখুক, ইউএসএ’র মানুষজন চলার পথে তাদের প্রিয় প্রেসিডেন্টকে রাস্তার পাশ থেকে হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানিয়েই যাচ্ছে।

(0)

mashiur
By mashiur December 26, 2016 22:15